মাদুরোকে সমর্থন না দিতে ট্রাম্পের আহ্বান

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ভেনেজুয়েলার সেনাবাহিনীকে বিরোধী নেতা ও স্বঘোষিত অন্তর্বর্তীকালীন প্রেসিডেন্ট হুয়ান গুয়াইদোকে মেনে নিতে আহ্বান জানিয়েছেন। না হলে তারা তাদের জীবন ও ভবিষ্যৎ ঝুঁকির মুখে ফেলবে বলে সতর্ক করে দেন। এএফপি ও রয়টার্সের খবরে এ তথ্য জানানো হয়।

গতকাল সোমবার ফ্লোরিডার মিয়ামিতে এক সমাবেশে এসব কথা বলেন ট্রাম্প। সমাবেশে উপস্থিত লোকজনের অধিকাংশই ছিল ভেনেজুয়েলা ও কিউবা থেকে যুক্তরাষ্ট্রে আসা অভিবাসী। ট্রাম্প বলেন, তাঁদের কাছে সামরিক কর্মকর্তাদের জন্য খবর আছে যে মাদুরোকে ক্ষমতায় রাখার চেষ্টা চলছে।

ট্রাম্প বলেন, ‘আজ এবং ভবিষ্যতের প্রতিটি দিন আপনাদের ওপর পুরো পৃথিবীর নজর রয়েছে এবং থাকবে। এখন আপনারা যে পরিস্থিতির সম্মুখীন, সেখান থেকে পালানোর সুযোগ নেই। আপনারা পরিবার ও দেশবাসীর সঙ্গে শান্তিতে বসবাস করতে চাইলে গুয়াইদোর উদাত্ত আহ্বান গ্রহণ করতে পারেন। অথবা আপনাদের সামনে দ্বিতীয় পথ খোলা রয়েছে। মাদুরোকে সমর্থন দিয়ে যেতে পারেন। আপনার যদি এ পথ বেছে নেন, তাহলে আপনাদের সামনে কোনো নিরাপদ ভবিষ্যৎ নেই, বের হওয়ার সহজ কোনো দরজা নেই এবং কোনো পথও নেই। আপনরা সবই হারাবেন।’

ট্রাম্পের এমন বক্তব্যকে ‘নাৎসি ধরনের’ বলে অভিহিত করেছেন মাদুরো। বলেছেন, ট্রাম্পের আচরণ দেখলে মনে হয় তিনি ‘ভেনেজুয়েলার মালিক’ এবং এর ‘নাগরিকেরা তাঁর দাস’।

ভেনেজুয়েলায় চলমান ভয়াবহ মানবিক সংকটে সাড়া দিয়ে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ত্রাণ পাঠানো শুরু করেছে। কিন্তু খাদ্য ও ওষুধবোঝাই অনেক ট্রাক পূর্বাঞ্চলীয় কলম্বিয়া সীমান্ত দিয়ে ভেনেজুয়েলায় ঢোকার চেষ্টা করলে দেশটির সেনাবাহিনী তাদের বাধা দিয়েছে। দ্বিতীয় দফায় ত্রাণ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনীর একটি উড়োজাহাজ গত শনিবার কলম্বিয়ার সীমান্তবর্তী শহর কুকুতায় পৌঁছেছে।

দেশটির মানুষের জন্য সেখানে খাবার ও ওষুধ মজুত করা হচ্ছে। তবে ওই ত্রাণ ভেনেজুয়েলার কোথায় ও কীভাবে বিতরণ করা হবে, এ নিয়ে অনিশ্চয়তা রয়ে গেছে। দেশটি এর আগে যে ত্রাণ পাঠিয়েছিল, তা এখনো ভেনেজুয়েলায় প্রবেশ করাতে পারেনি।

এ পরিস্থিতিতে মানবিক সহায়তা দেশটিতে প্রবেশ করতে দিতে সামরিক বাহিনীর প্রতি আহ্বান জানান ট্রাম্প।

ত্রাণ প্রবেশে সরকারের বাধাদান ঠেকাতে গত রোববার গুয়াইদো ১০ লাখ স্বেচ্ছাসেবক পাওয়ার লক্ষ্য হাতে নেন। এরই মধ্যে ছয় লাখ স্বেচ্ছাসেবকের স্বাক্ষর নিবন্ধিত হয়েছে। ত্রাণ ইস্যুতে নিজ শক্তিমত্তা দেখাতে ২৩ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত মাদুরো সরকারকে সময় দিয়েছেন গুয়াইদো।

এর ঠিক এক মাস আগে তিনি নিজেকে ভেনেজুয়েলার অন্তর্বর্তীকালীন প্রেসিডেন্ট ঘোষণা করেন। গুয়াইদো বলেন, ‘২৩ ফেব্রুয়ারি হাজারো ভেনেজুয়েলাবাসীর জীবন বাঁচানোর সুযোগ আমাদের রয়েছে।’

তবে মাদুরো গুয়াইদোকে পাল্টা জবাব দিয়েছেন। তিনি জানিয়েছেন, রাশিয়া থেকে ৩০০ টন ত্রাণ আগামীকাল বুধবার পৌঁছাবে। টেলিভিশনে প্রচারিত এক সরকারি অনুষ্ঠানে মাদুরো বলেন, ওই ত্রাণের মধ্য খুবই প্রয়োজনীয় ওষুধ রয়েছে।

এর আগে মাদুরো ঘোষণা দিয়েছিলেন, তাঁর অন্যতম আন্তর্জাতিক মিত্র চীন, কিউবা ও রাশিয়া থেকে ত্রাণ আসবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *