গুয়াইদোকে সমর্থন দিল লিমা গ্রুপ

ভেনেজুয়েলার স্বঘোষিত অন্তর্বর্তী প্রেসিডেন্ট হুয়ান গুয়াইদোকে সমর্থন দিতে সেনাবাহিনীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছে লাতিন আমেরিকার বেশ কয়েকটি দেশ ও কানাডা।

এক বিবৃতিতে অর্থনৈতিক সংকটে জর্জরিত দেশটিতে কোনো ধরনের বলপ্রয়োগ ছাড়াই ক্ষমতা পরিবর্তনের এবং জরুরি ভিত্তিতে মানবিক সহায়তা দিতে লিমা গ্রুপভুক্ত ১৪টি দেশের মধ্যে ১১টি দেশ আহ্বান জানিয়েছে।

আজ মঙ্গলবার বিবিসি অনলাইনের খবরে জানানো হয়, ভেনেজুয়েলায় অর্থনৈতিক সংকটের কারণে কয়েক বছর ধরে ক্রমেই অজনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন সমাজতান্ত্রিক প্রেসিডেন্ট মাদুরো। এ পরিস্থিতিতে গত ২৩ জানুয়ারি কারাকাসে বিরোধীদের বিক্ষোভ চলাকালে প্রেসিডেন্ট মাদুরোকে ‘অবৈধ’ আখ্যা দিয়ে গুয়াইদো নিজেকে ভেনেজুয়েলার অন্তর্বর্তীকালীন প্রেসিডেন্ট ঘোষণা করেন। এরই মধ্যে তিনি যুক্তরাষ্ট্রসহ বেশ কয়েকটি ক্ষমতাধর রাষ্ট্রের কাছ থেকে সমর্থন পেয়েছেন। তবে দেশটির প্রেসিডেন্ট নিকোলা মাদুরো বলেছেন তিনি দেশটির বৈধ নেতা।মাদুরোর পেছনে রয়েছে চীন ও রাশিয়ার সমর্থন। তিনি সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, দেশটির গভীর রাজনৈতিক সংকট গৃহযুদ্ধ বাধিয়ে দিতে পারে।

গত মাসে মাদুরো বিতর্কিত নির্বাচনের মধ্য দিয়ে দ্বিতীয় দফায় ক্ষমতা গ্রহণ করেন। কারণ, ওই সময় বিরোধী দলীয় অনেক নেতা কারাগারে থাকার কারণে বা অনেককে বয়কটের কারণে তাঁরা নির্বাচনে অংশ নিতে পারেননি।

লিমা গ্রুপের ঘোষণা
কানাডার রাজধানী অটোয়ার এক বৈঠক শেষে ১৭টি পয়েন্টে যৌথ ঘোষণা দেয় লিমা গ্রুপ। গ্রুপের ১১টি দেশ আর্জেন্টিনা, ব্রাজিল, কানাডা, চিলি, কলম্বিয়া, কোস্টারিকা, গুয়াতেমালা, হন্ডুরাস, পানামা, প্যারাগুয়ে ও পেরু ভেনেজুয়েলার অন্তর্বর্তী প্রেসিডেন্ট হিসেবে হুয়ান গুয়াইদোর প্রতি ‘স্বীকৃতি ও প্রতি সমর্থন পুনর্ব্যক্ত করেন’।

এই ১১টি দেশ মাদুরো সরকারকে বিদেশে আর্থিক ও বাণিজ্যিক লেনদেন পরিচালনা থেকে দূরে রাখতে পদক্ষেপ নিতে বিশ্ব সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে। তবে লিমা গ্রুপভুক্ত তিনিটি দেশ গায়না, মেক্সিক্র ও সেন্ট লুসিয়া এই ঘোষণার প্রতি সমর্থন জানায়নি।ভেনেজুয়েলার সংকটের শান্তিপূর্ণ সমাধানে সহায়তা করতে ২০১৭ সালে লিমা গ্রুপ তৈরি হয়।

গৃহযুদ্ধের নিশ্চিত জবাব নেই
ভেনেজুয়েলা কি গৃহযুদ্ধের দিকে যাচ্ছে? এমন প্রশ্নের জবাবে স্পেনিশ টেলিভিশনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে মাদুরো বলেন, ‘কেউ-ই এই প্রশ্নের নিশ্চিত জবাব দিতে পারবে না। সবকিছুই নির্ভর করছে উত্তরাঞ্চলীয় সাম্রাজ্য (যুক্তরাষ্ট্র) ও তার পশ্চিমা মিত্রদের পাগলামি ও আগ্রাসী মনোভাবের মাত্রার ওপর। আমরা আমাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে কাউকে হস্তক্ষেপ না করতে বলেছি…আমরা আমাদের দেশকে রক্ষা করতে নিজেদের প্রস্তুত করেছি।’


তবে এদিকে স্পেনের এল পাইসকে দৈনিক পত্রিকাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে হুয়ান গুয়াইদো বলেন, দেশে গৃহযুদ্ধের আশঙ্কা নেই। সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশবাসী মাদুরোর পদত্যাগ চান। ৯৯ শতাংশ জনগণ পরিবর্তন দেখতে চায় বলেও দাবি করেন গুয়াইদো। তিনি অভিযোগ করেন, মাদুরো সরকার ১২০ কোটি অর্থ উরুগুয়েতে পাঠানোর চেষ্টা করছে। তবে এ ব্যাপারে কোনো তথ্যপ্রমাণ তিনি দিতে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *